‘গেট আউট, এই অফিস ও চেম্বার তোমার জন্য চিরতরে বন্ধ’

অনলাইন ডেস্ক : একাদশ জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে সদ্য শপথ গ্রহণকারী গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খানকে গেট আউট বলে নিজের চেম্বার থেকে বের করে দিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। দলটির প্রশিক্ষণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম পথিক এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টার দিকে তিনি ড. কামাল হোসেনের মতিঝিল চেম্বারে যান।

এসময় ড. কামাল হোসেনের চেম্বারের উপস্থিত ছিলেন- দলের কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা। মোকাব্বির খানকে চেম্বারে দেখে ড. কামাল চেয়ার ছেড়ে উঠে দাড়িয়ে মোকাব্বির খানের উদ্দেশ্যে বলেন, গেট আউট। তুমি আমার নামে বদনাম করে বেড়াচ্ছো। আমি নাকি তোমাকে সংসদে শপথ নেয়ার অনুমতি দিয়েছি। আমি তোমার জন্য বেঈমান হতে পারব না। পরে মোকাব্বির খান চেম্বার ত্যাগ করতে বাধ্য হন।। এসময় ড. কামাল হোসেন তার বাসা ও অফিসে না আসার জন্যও মোকাব্বির খানকে বলে দেন।

ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে উপস্থিত কয়েকজন নেতা জানান, বিকেল পৌনে ৪টার দিকে মোকাব্বির খান চেম্বারে প্রবেশ করে ড. কামাল হোসেনকে সালাম দেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই রাগান্বিত হয়ে ওঠেন গণফোরাম সভাপতি। এসময় তিনি মোকাব্বির খানকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনি কোন কথার উপরে সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন– আপনি দলের সিদ্ধান্তে শপথ নিচ্ছেন? আপনাকে কে সিদ্ধান্ত দিয়েছে? আপনি কেন দলের সভাপতির নাম ব্যবহার করেছেন? কীভাবে দলীয় প্যাডে চিঠি দিয়েছেন? আপনি আর কখনো এখানে আসবেন না। এখান থেকে বেরিয়ে যান। গেট আউট, গেট আউট। এই অফিস ও চেম্বার আপনর জন্য চিরতরে বন্ধ।’

পরে ড. কামাল হোসেন তার চেম্বারের কর্মকর্তাদের ডেকে বলেন, কোনোভাবেই যেন এই ব্যক্তি তার চেম্বার ও বাসায় না আসতে পারে।

এ সময়ে চেম্বারে ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কেন্দ্রীয় নেতা নুরুল হুদা মিলু চৌধুরী ও ঐক্যবদ্ধ ছাত্র সমাজের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহ মধু।

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সদস্য নুরুল হুদা নিলু চৌধুরী বলেন, ওই সময়ে তিনি ড. কামাল হোসেনের কক্ষে ছিলেন। মোকাব্বির খান চেম্বারে প্রবেশ করে সালাম দিতেই ড. কামাল হোসেন চরম রাগান্বিত হয়ে ওঠেন এবং তাকে বের করে দেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু জানিয়েছেন, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে শপথ নেওয়ায় মোকাব্বির খানের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত নেবে গণফোরাম।

তিনি বলেন, মোকব্বির খানের শপথ নেওয়ার বিষয়ে দলের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রীয় নেতারা অবগত ছিলেন না। তিনি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ইচ্ছায় শপথ নিয়েছেন। মোকাব্বির খানের সংগঠন ও আদর্শ বিরোধী কার্যকলাপে গণফোরাম মর্মাহত।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গণফোরাম জরুরিভাবে মোকাব্বির খানের ব্যাপারে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। একইসঙ্গে এই শপথ নেওয়ার ঘটনার সঙ্গে সংগঠনের অন্য কেউ জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *