ডোমার আমবাড়ীতে চাকরির প্রলোভনে যুবতী ধর্ষণ

মোসাদ্দেকুর রহমান সাজু, ডোমার (নীলফামারী) থেকে : নীলফামারী ডোমারে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে প্রতারক প্রেমিকের বিরুদ্ধে।
ঘটনাটি ঘটেছে, উপজেলার গোমনাতী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড পূর্ব আমবাড়ী, ডাঙ্গাপাড়া গ্রামে।

থানার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উক্ত গ্রামের আনছার আলীর লম্পট ছেলে মফিজার রহমান (৩৫) দীর্ঘদিন যাবত ঢাকায় সিএনজি চালিয়ে আসছে। এলাকার সহজ-সরল যুবতি মেয়ের সাথে ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরে গামেন্টর্স ফ্যাক্টরিতে ভাল বেতনের চাকরি দেয়ার নামে তাকে ঢাকায় নিয়ে যায়। সেখানে বন্ধুরা মিলে তাকে ধর্ষণ করে বলে এলাকায় বেশ কয়েকটি পরিবারের সাথে কথা বলে জানা যায়।

এমনিভাবে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে গত ১০ আগস্ট আমবাড়ী এলাকার মাঝাপাড়া গ্রামের এক দিনমজুরের কন্যাকে প্রতারক মফিজার ও তার সহযোগী উপজেলার ভোগডাবুড়ী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মুন্সিপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে রশিদুল ইসলাম মিলে চিলাহাটি বাজারে আসতে বলে তাকে ঢাকায় নিয়ে যায়।

ঢাকা গাবতলী এলাকায় উদ্যান নামক স্থানে একটি ভাড়া বাসায় নিয়ে স্ত্রীর পরিচয়ে দিনের পরদিন ধর্ষণসহ শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতন সইতে না পেরে মেয়েটি বাড়ী আসতে চাইলে তাকে বেধক মারধর করা হয়। বিষয়টি আশেপাশের লোক জানতে পারলে তাদের ভয়ে গত ১৬ নভেম্বর জিসা পরিবহনে ভোরে চিলাহাটিতে সাবিনাকে নামিয়ে দিয়ে কৌশলে মফিজার পালিয়ে যায়। তার সাথে একাধিকবার যোগাযোগে ব্যর্থ হয়ে গত ২১ নভেম্বর মফিজারসহ তার সহযোগী রশিদুরের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ধর্ষিতা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউপি সদস্য জানান, এর আগেও ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি মেয়েকে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে অবৈধ কর্মকান্ড ঘটিয়েছে ধর্ষণকারী। যার কারণে তাকে শুকনা পুকুর বাজারে গণধোলাই দিয়ে এলাকা ছাড়া করে।

এ বিষয়ে প্রতারক মফিজার বলেন, তাকে আমি নিয়ে যাইনি, সে নিজে গিয়ে, ঢাকায় আমার সাথে ফোনে বলে। দু একবার দেখা হয়েছিল মাত্র। প্রতারক মফিজারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *