দুর্নীতির মহাসড়কে হাবুডুবু খাচ্ছে দেশ : এরশাদ

চট্টগ্রাম থেকে সংবাদদাতা : সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘শান্তি চাই, সুদিন ফিরে চাই, দুর্নীতি চাই না। দেশে মানুষের জীবনের কোনো মূল্য নেই। খুন, গুম নিত্যদিনের ঘটনা। উন্নয়নের মহাসড়কের নামে চলছে দেশে ব্যাংক লুটপাট। শেয়ারবাজার থেকে কোটি কোটি টাকা উধাও হয়েছে। সব জায়গায় অনিয়ম-দুর্নীতি। দুর্নীতির মহাসড়কে হাবুডুবু খাচ্ছে দেশ।
শনিবার বিকেলে নগরীর লালদীঘি মাঠে জাতীয় পার্টি ও ইসলামী ফ্রন্টের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেন, দেশের মানুষ পরিবর্তন চায়। দেশকে বাঁচাতে হবে। আমরা একক সরকার চাই না। সব একজনের কথায় চলছে। দেশে কোন নিরাপত্তা নেই। এখন তো নির্বাচন হয় না, সীল মারে। নির্বাচন কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে। আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। আমরা ক্ষমতায় আসলে প্রদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করবো। আমরা চট্টগ্রামে অনেক উন্নয়ন করেছি। আমাদের সময় মানুষ ভালোভাবে নিঃশ্বাস ফেলতে পারে। কিন্তু বর্তমান মানুষের নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। মানুষ বাঁচতে চায়। সরকার পরিবর্তন চায়।
আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেন, ১০ টাকা করে চাউল খাওয়ানোর কথা ছিল। এখন চাউলের দাম ৬০ টাকা। ঘরে ঘরে চাকরি দেওয়ার কথা দিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। এখন বাংলাদেশে ৮৬ লক্ষ বেকার মানুষ, আজ অসহায় অবস্থায় পড়ে আছে। তাদের কোনো কাজ নেই। আমরা স্বৈরাচার নয়, আন্তর্জাতিকভাবে স্বৈরাচার খ্যাতি পেয়েছে আওয়ামী লীগ।
এরশাদ বলেন, ঢাকা থেকে রাস্তা দিয়ে রংপুর গিয়েছি ৮০০ থেকে হাজার বার। তখন সময় লাগত ছয় ঘণ্টা। এখন ১২ ঘণ্টা লাগে। কারণ উন্নয়নের মহাসড়ক এখন খানাখন্দ। এই খানাখন্দ সংস্কারের দায়িত্ব জাতীয় পার্টিকেই নিতে হবে। আগের চেয়ে এখন জাতীয় পার্টি অনেক শক্তিশালী। দুই দলকে মানুষ দেখেছে, এবার জাতীয় পার্টিকে দেখবে। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য প্রস্তুত। জনগণ জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে আছে। এখন মানুষের নিরাপত্তা নেই। দেশের মানুষ ভালো নেই। ব্যবসায়ীদের ব্যবসা নেই। জাতীয় পার্টিই পারে দেশের মানুষের আর্থিক ও সামাজিক নিরাপত্তা দিতে।
এরশাদ বলেন, মেয়েরা স্কুলে যেতে পারে না। রাস্তায় উত্ত্যক্ত হয়, নির্যাতনের শিকার হয়। ছেলেরা এমএ পাস করে চাকরি পাচ্ছে না। কনস্টেবল পদে চাকরিতে ১০ লাখ, এসআই পদে ২০ লাখ, পিয়ন পদে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দিতে হয়। আমার সময় এমন ছিল না। এমন ঘুষ নেওয়ার ঘটনা ঘটলে ক্ষমতা ছেড়ে দিতাম। এখন যুবকরা চাকরি না পেয়ে হতাশ হয়ে নেশাগ্রস্ত হচ্ছে। অন্ধকারের দিকে যাচ্ছে। এখন হাত বাড়ালেই ফেনসিডিল, চায়ের দোকান, পানের দোকানে ইয়াবা পাওয়া যায়। এসব অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে হবে। যুবসমাজকে রক্ষা করতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন পরিবর্তন। পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজন জাতীয় পার্টি।’
সম্মিলিত জাতীয় জোটের শীর্ষনেতা ও ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আল্লামা এম এ মান্নানের সভাপতিত্বে সমাবেশে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব এম এ মতিন, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক সিটি মেয়র মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়ক সোলেমান আলম শেঠ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Check Also

জাতীয় পার্টির নিয়ন্ত্রণ কার হাতে?

বিবিসির প্রতিবেদন অনলাইন ডেস্ক : সংসদে বিরোধী দলীয় নেত্রী রওশন এরশাদ জাতীয় পার্টির মন্ত্রীদের মন্ত্রিসভা …

Hussain Muhammad Ershad

দেশে হিংসার রাজনীতি চলছে : এরশাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, বাংলা ভাষার জন্য অনেকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *