‘প্রাণের টানে পায়ে হেঁটে রাউজান ঘুরে দেখা’ কর্মসুচি

এম বেলাল উদ্দিন, রাউজান থেকে : একঘন্টায় সাড়ে চার লাখ ফলদ চারা রোপন, একদিনে ১৫শ ব্যাগ রক্ত সংগ্রহ, উপজেলাকে পিংক, গ্রীণ ও ক্লিন সিটি গড়াসহ বিভিন্ন চমক জাগানো কর্মসূচির পর এবার রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর ভিন্নধর্মী উদ্যোগ- পায়ে হেঁটে রাউজান ঘুরে দেখা। সর্বস্তরের মানুষের ব্যানারে আয়োজিত এ উদ্যোগের নাম রাখা হয়েছে ‘প্রাণের টানে পায়ে হেঁটে রাউজানের ঘরে ঘরে এমপি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী।’ ১৬ এপ্রিল পায়ে হেঁটে রাউজান ঘুরে দেখা শুরু হবে।
এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি হাজার হাজার নেতাকর্মি নিয়ে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন। তিনি নিজে পায়ে হেঁটে রাউজান ঘুরে দেখবেন। যেখানে রাত সেখানে এমপি তার নেতাকর্মিদের নিয়ে রাতযাপন করবেন। এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে ইতিমধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। লিফলেট, পোস্টারে থাকছে ফজলে করিমের হাতে উন্নয়নের সংক্ষিপ্ত ফিরিস্তি। পায়ে হাঁটা কর্মসূচিতে অংশ নেয়া সাধারণ মানুষ, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দের জন্য করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত টুপি (ক্যাপ), বিশেষ পরিধান (গেঞ্জি অথবা কুটি)। সঙ্গে থাকবে উন্নয়নের ফিরিস্তি সংবলিত লিফলেট।
১৬ এপ্রিল সকাল ৮টায় ‘প্রাণের টানে পায়ে হেঁটে রাউজানের ঘরে ঘরে এমপি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী’ কর্মসূচি উদ্বোধন হবে গহিরা ইছাপুর রোড থেকে। পায়ে হেঁটে পুরো রাউজান দেখতে চারদিন লাগতে পারে। উদ্বোধনের সময় তিন হাজারেরও বেশি নেতাকর্মি থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। ইছাপুর রোড হয়ে গহিরা ঘুরে নোযাজিষপুর, হলদিয়ায় যাবেন এমপির নেতৃত্বাধীন পায়ে হাঁটার বহরটি। হলদিয়ায় রাত্রিযাপন করে পর দিন ডাবুয়া, চিকদাইর, ইউনিয়ন হয়ে পৌরসভা ঘুরে রাউজান ইউনিয়ন, পূর্ব গুজরা, কদলপুর, পাহাড়তলী, বাগোয়ান, নোয়াপাড়া, উরকিরচ, পশ্চিম গুজরা, বিনাজুরী ইউনিয়ন এবং মোবারকখীল হয়ে এমপি ফজলে করিম চৌধুরীর গহিরা বাড়িতে শেষ হবে কর্মসূচি।
পায়ে হাঁটার সময় বিভিন্ন ইউনিয়নে, গ্রামে গ্রঞ্জে পথসভা, সাধারণ মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় ছাড়াও তাদের সুখ দুঃখের কথা শুনবেন এমপি ফজলে করিম।
জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন ‘এ ধরণের উদ্যোগ বাংলাদেশের আর কোনো এমপি কখনো নেয়নি। সাধারণত মানুষ নির্বাচন এলে কিছু কিছু এলাকায় যায়, কিন্তু রাউজানের এমপি নির্বাচন ছাড়াও মানুষের পাশে সবসময় থাকেন। তারপরও তিনি এখন পায়ে হেঁটে গ্রামে গ্রামে গিয়ে মানুষের কথা শুনতে চান।’
উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা বলেন ‘এমপি পায়ে হেঁটে রাউজান দেখার উদ্যোগটি খুবই চমৎকার এবং ভিন্নধর্মী। এটি নিয়ে সবার ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে। এরফলে জনগণ এমপিকে খুব কাছে থেকে দেখবে, কথা বলতে পারবে।’
উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক আহসান হাবিব চৌধুরী হাসান বলেন ‘এমপি পায়ে হাঁটার উদ্যোগ সফল করার লক্ষ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে প্রতিটি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ৯ ওয়ার্ডে। এলাকার মানুষের মাঝে এটি নিয়ে উৎসাহ উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। এ উদ্যোগকে রাউজানের সাধারণ মানুষ খুব ভালোভাবে নিয়েছে। স্বাগত জানাচ্ছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *