আমার তওবা কবুল হবে কি?

আবদুল হালিম খান : হজরত আবু সাঈদ খুদরি (র.) কর্তৃক বর্ণিত। নবি করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, বনি ইসরাইলের মধ্যে এমন এক ব্যক্তি ছিল যে নিরানব্বইজন লোক হত্যা করল। তারপর (মুক্তির উপায় জানতে) জিজ্ঞাসা করতে বের হলো। প্রথম সে একজন পাদরির কাছে আগমন করল এবং তাকে জিগ্যেস করল যে, আমার তওবা কবুল হবে কি?

পাদরি বলল, না।

তখন সে তাকেও হত্যা করল। এরপর সে এ ব্যাপারে জিগ্যেস করতেই থাকল। এক ব্যক্তি তাকে বলল, ওমুক লোকালয়ে গমন করো (সেখানে একজন আলেম আছেন তাকে জিগ্যেস করে নাও)।

তখন লোকটি যাত্রা করল; কিন্তু (পথেই) তার মৃত্যু হয়ে গেল। (মৃত্যুকালে) সে নিজের বুকটি লোকালয়ের দিকে বাড়িয়ে দিল। অতঃপর তাকে নিয়ে রহমতের ফেরেশতা ও আজাবের ফেরেশতা ঝগড়া শুরু করে দিল।

এমন অবস্থায় আল্লাহতায়ালা যে লোকালয়ের উদ্দেশে লোকটি (তওবা করার জন্য) রওনা করেছিল, তাকে হুকুম দিলেন, হে গ্রাম! লোকটির নিকটবর্তী হয়ে যাও। আর যেখানে হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছিল, গ্রামকে হুকুম দিলেন, হে গ্রাম! লোকটি হতে দূরে সরে যাও। অতঃপর ফেরেশতাদ্বয়কে বললেন, তোমরা উভয় গ্রামের দূরত্ব মেপে দেখো (লোকটি) কোন গ্রামের বেশি নিকটবর্তী; সুতরাং (পরিমাপের পর) দেখা গেল, লোকটি যে গ্রামে তাওবা করতে যাচ্ছিল, অপর গ্রামটির তুলনায় তা এক বিঘত অধিক নিকটবর্তী। তখন আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দিলেন। (সহিহ বোখারি)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *