নায়কদের বন্দনায় রিচি সোলায়মান

বিনোদন রিপোর্টার : একজন অভিনেত্রীকে যখন দর্শকরা তার অভিনীত চরিত্রের নামে ডাকেন, সেটা সেই শিল্পীর বড় স্বার্থকতা। যদি এমন হয় যে, কোনো দর্শক তার অসাধারণ অভিনয় দেখে, নিজের ছেলের জন্য তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে বসেন, সেটাও শিল্পীর জন্য অনেক বড় পাওয়া। ব্যক্তিত্ববান নারীর চরিত্রে অনেক নাটকে রিচির অভিনয় দর্শকদের প্রভাবিত করেছে দারুণভাবে। রিচি বহু অভিনেতার বিপরীতে কাজ করেছেন। সম্প্রতি তিনি তার নাটকের পাঁচ নায়ককে নিয়ে নানা কথা বলেছেন। অভিনেতা জাহিদ হাসানের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা নিয়ে রিচি সোলায়মান বলেন, ‘আমি আসলে সবার বিপরীতে কাজ করতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। তেমনি জাহিদ ভাইয়ের সঙ্গে কাজ করতেও আমার ভালো লাগে। নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে আমি জাহিদ ভাইয়ের বিপরীতে অনেক নাটকে কাজ করেছি। প্রথম প্রথম তার সঙ্গে অভিনয় করতে গেলে আমার মধ্যে একটু ভয় কাজ করতো। কিন্তু জাহিদ ভাই আমাকে সহজ করে নিয়েছেন বলে দ্রæতই সেই ভয় হাওয়ায় মিলিয়ে যায়। তিনি আসলে অনেক খোলা মনের একজন মানুষ। জাহিদ ভাই শুধু আমার সহশিল্পীই নন, পছন্দের অভিনেতাও। তার সঙ্গে কাজ করতে গেলে কখনোই আমাকে এটা ফিল করতে দেননি যে, তিনি অনেক বড় আর্টিস্ট আর আমি তার অনেক জুনিয়র। একজন সহশিল্পী হিসেবে তিনি সহযোগিতাপরায়ণ, অনেক বড় একজন শিল্পী ও মানুষ। শুটিংয়ের সময় আমি কখনো দেখিনি কোনো পরিচালক তার অভিনীত চরিত্র নিয়ে তাকে কোনো পরামর্শ দিয়েছেন। গুণী অভিনেতা বলে তিনি নিজে নিজেই ক্যারেক্টারাইজেশন করে নিজের মতো করে আলাদা একটি চরিত্র দাঁড় করিয়েছেন।’ ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে মাহফুজ আহমেদের সঙ্গে খুব বেশি কাজ করেননি রিচি। তবে মাঝে কয়েক বছর তার সঙ্গে বেশকিছু কাজ হয়েছে এই অভিনেত্রীর। মাহফুজ আহমেদকে নিয়ে রিচি বলেন, ‘মাহফুজ ভাইয়ের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে তার সবচেয়ে যে বড় গুণটি আমি দেখতি পেয়েছি তা হলো- তিনি অনেক ধৈর্য্যশীল। কোনো কাজ নিজের মনঃপুত না হওয়া পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়ে যেতে ক্লান্তি অনুভব করেন না। প্রয়োজনে একটি ‘টেক’ তিনি বারবার দিতে পারেন। কাজ করার সময় তিনি অন্য এক মাহফুজ হয়ে যান। শুটিয়ের সময় তাকে কখনো কখনো শিশুর মতো মনে হয়েছে। একবার না পারলে শিশুদের মতোই বারবার চেষ্টা করেন।’ অভিনেতা ও পরিচালক মীর সাব্বির রিচির ভালো বন্ধুদের একজন। তাকে নিয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, “সাব্বিরকে আমি ‘দোস্ত’ বলে ডাকি। শুটিংয়ের অবসরে ও সবাইকে মাতিয়ে রাখতে পছন্দ করে। কিন্তু যখন সেটে প্রবেশ করে, তখন সে খুব সিরিয়াস। ঐ সময় বোঝার উপায় থাকে না যে, এই ছেলেটিই একটু আগে সবাইকে হাসি আনন্দে মাতিয়ে রেখেছিল।”
আনিসুর রহমান মিলনকে রিচি ‘গড গিফটেট’ একজন আর্টিস্ট মনে করেন। “মিলন ভাই অনেক ভালো একজন অভিনেতা। আমি ওর সঙ্গে অনেক কাজ করেছি। কোনো রকমের রিসার্সেল ছাড়া তাৎক্ষণিক সে সুন্দর করে একটি চরিত্র দাঁড় করিয়ে ফেলতে পারে। আমি আদর করে ওকে ‘মামস’ বলে ডাকি। সেও আমাকে ‘মামস’ ডাকে”, বললেন রিচি।
‘নাবিলাচরিত’ শিরোনামের একটি ধারাবাহিকে আরমান পারভেজ মুরাদের সঙ্গে কাজ করেছেন রিচি। সেই কাজের জন্য দর্শকদের দারুণ রেসপন্স পেয়েছেন এই অভিনেত্রী। সহঅভিনেতা নিয়ে রিচি বলেন, “মুরাদ ভাই সুইট একজন মানুষ। সুন্দর করে কথা বলেন। নিজের কাজ নিয়ে তাকে অতৃপ্তিতে ভুগতে দেখেছি সারাক্ষণ। অভিনয় করার সময় তিনি বারবারই বলেন, ‘আমার কিছুই হচ্ছে না।’ কাজ নিয়ে তার এই যে অতৃপ্তি, পাশাপাশি ভালো কাজের প্রতি তার যে আকাঙ্খা, এটা আমাকে অনেক ভাবিয়েছে।”

Check Also

করোনা নিয়ে যে বার্তা দিলেন মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক: চীনের পর করোনা ভাইরাসের সবচেয়ে বেশি প্রকোপ ইউরোপে। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে …

নামের ভুল চর্চা করায় বিরক্ত জয়া আহসান

অনলাইন ডেস্কঃ হালসময়ের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের গণমাধ্যমগুলো তার নাম বিকৃত করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *