ব্যক্তির দায় সংগঠনের নয়: হাসান মাহমুদ

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : যে অপরাধ করে সেই অপরাধী, অন্য কেউ নয়। ছাত্রলীগ এশিয়ার সর্ব বৃহৎ একটি ছাত্র সংগঠন। এ সংগঠনের নিজস্ব গঠনতন্ত্র রয়েছে। কেউ অপরাধ করলে বা অপরাধী শনাক্ত হলে সাংগঠনিকভাবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়ে থাকে। আর ত্রিশাল উপজেলা ছাত্রলীগও তাই করেছে। তবে এ বিষয়গুলোর সাথে আমাকে ও আমার পিতা জাতীয় সংসদ সদস্যকে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য একটি মহল গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

কথাগুলো বলেছেন ত্রিশাল উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাসান মাহমুদ। শনিবার তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাদের নিয়ে কক্সবাজারে ভ্রমণে যাওয়া হয়। ভ্রমণ শেষে সৌখিন পরিবহনের তিনটি বাসে ছাত্রলীগ নেতারা ত্রিশালের উদ্দেশে রওনা হয়। আমার সাথে বড় ভাই ও আমাদের পরিবারের লোকজন থাকায় আমরা নিজস্ব গাড়ীতে দুইদিন পর রওনা হই। পরে ত্রিশাল এসে জানতে পারি- মঠবাড়ী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল তার ভাইয়ের বাসায় যাওয়ার কথা বলে উত্তরায় নেমে যান। তারপর থেকে সে নিখোঁজ। আরো দু’দিন পর জানতে পারি রুবেল ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার হয়েছে। পরে বিষয়টি নিয়ে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল নেতাদের সাথে কথা বলে উপজেলা ছাত্রলীগ জরুরি বৈঠক ডেকে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তাকে সাময়িকভাবে বহিস্কার করা হয়েছে। তদন্তের মাধ্যমে রুবেলের বিরুদ্ধে স্থায়ী ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *