ব্রিস্টলে আজ বাংলাদেশের প্রধান প্রতিপক্ষ ‘কন্ডিশন’

স্পোর্টস ডেস্ক : বিশ্বকাপে সবচেয়ে দুর্বল দুটি দলের নাম হলফ করে বলা যায় আফগানিস্তান ও শ্রীলংকা। মাঠের লড়াই দূরের কথা অন্তত কাগজে-কলমেও এই দল দুটিকে প্রতিপক্ষ দলগুলোর চেয়ে এগিয়ে রাখবে না কেউই। আর এই দুটি দলের বিপক্ষে বাংলাদেশ যে জিতবেই সেই বিষয়ে কিন্তু টাইগার সমর্থকদের মনে কোনো সন্দেহ নেই।

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে যেতে হলে কমপক্ষে পাঁচটি ম্যাচে জিততে হবে টাইগারদের। দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে সেই পথে প্রথম ধাপটা পার করেছে বাংলাদেশ। শ্রীলংকা আর আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রত্যাশিত জয় পেলে আর দুটি ম্যাচে জয় পেলেই চলবে। সেক্ষেত্রে পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রাথমিকভাবে লক্ষ্য বানাতে পারে মাশরাফি বাহিনী। তবে এখনই এতো দূরের ভাবনা না ভাবলেও চলবে ‘দ্য ক্যাপটেনের’। ব্রিস্টলে আজ শ্রীলংকার বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। এই ম্যাচে জয়ের প্রত্যাশায় রয়েছেন টাইগাররা। আজ দুইয়ে দুইয়ে মিলে গেলেই লঙ্কাজয় সম্ভব।

ব্রিস্টলে আজ বাংলাদেশের প্রধান প্রতিপক্ষ ‘কন্ডিশন’। শহরটির আকাশ যেভাবে ক্রন্দন শুরু করেছে তাতে শ্রীলংকার চেয়ে কন্ডিশনের বিপক্ষে প্রথম লড়াইটা করতে হবে টাইগারদের। সবকিছু যদি ভালোয় ভালোয় এগােয় আর প্রকৃতি যদি টাইগারদের ওপর কৃপা বর্ষণ করেন তাহলে সোনায় সোহাগা।

ব্রিস্টল কিন্তু ইংল্যান্ডের অন্য উইকেটগুলোর মতো ‘রান প্রসবা’ নয়। এখানে খেলা ৩৬টি ইনিংসের কেবল ছয়টিই তিনশোর্ধ রান পার করতে পেরেছে। দেশটির সিমিং ও বাউন্সি উইকেটগুলোর মধ্যে এই ব্রিস্টল একটি। এবারের আসরে এই ভেন্যুতেই অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের গোলার সামনে মাত্র ২০৭ রানে অলআউট হয় আফগানিস্তান। ২০১৭ সালে এখানে ১২৬ রানে অলআউট হয় আয়ারল্যান্ড। উইকেটের বিষয়টি মাথায় রেখে ব্রিস্টলে একজন বাড়তি পেসার খেলাতে পারে টিম বাংলাদেশ।

সম্প্রতি কিছু ম্যাচে বেশ ভালো রানও হয়েছে এই ভেন্যুতে। বিশ্বকাপ শুরুর কিছুদিন আগে এখানে ৩৫৮ রান করে পাকিস্তান। জনি বেয়ারস্টোর অসাধারণ ব্যাটিংয়ে ৫ ওভার হাতে থাকতেই ম্যাচটা জিতে নেয় ইংল্যান্ড। ব্যাটসম্যানদের কথা বিবেচনায় নিলে ব্রিস্টলে ব্যাটিং লাইন আপে পরিবর্তন আনতেই পারে বাংলাদেশ। ফর্মহীনতায় থাকা মিঠুনের বদলে লিটন দাসকে সেরা একাদশে আনা হতে পারে।

ব্রিস্টলে মাঠে নামার আগে কিছু সুখস্মৃতি হাতড়ে নিতে পারে টিম বাংলাদেশ। ২০১০ সালে এখানে ইংল্যান্ডকে ৫ রানে হারিয়েছিলেন মাশরাফিরা। সেবার খেলা পাঁচজন ক্রিকেটার কিন্তু বিশ্বকাপের স্কোয়াডে রয়েছেন। সেবার ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন মাশরাফি। অধিনায়ক যদি ২০১০ এর স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে পারেন তাহলে কিন্তু লঙ্কাজয় খুব কঠিন হওয়ার কথা নয়।

এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে ভঙ্গুর ব্যাটিং লাইনআপ শ্রীলঙ্কার। বিশ্বকাপে দুই ম্যাচেই ব্যর্থ হয়েছেন ম্যাথুস-পেরেরারা। নিউজিল্যান্ডের পেস আর আফগানিস্তানের স্পিনের সামনে বালির বাধের মতো ভেঙে পড়েছে দলটির ব্যাটিং দূর্গ। করুনারত্নে ও কুশল পেরেরা ছাড়া বলার মতো রান করেননি কোনো লংকান ব্যাটসম্যান। সুযোগটা হাতছাড়া হতে দিতে চাইবেন না মাশরাফি।

প্রথমে ব্যাটিং করলে আর ভালো একটা স্কোর দাঁড় করাতে পারলে লংকানদের রুখে দেয়া সম্ভব। আর যদি লংকানরা প্রথমে ব্যাটিং করে তাহলে সম্মিলিতভাবে আক্রমণ করতে হবে। মুস্তাফিজ-মাশরাফি-সাকিব-মিরাজরা যদি নিজের সামর্থ্যমতো পারফর্ম করতে পারেন তাহলে অল্পরানেই লংকানদের আটকানো সম্ভব। আর বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা যে আগুনে ফর্মে রয়েছেন তাতে প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, লঙ্কাজয়, খুব একটা দূরে নয়!

Check Also

উইন্ডিজের আগ্রাসী ব্যাটিং ইতিবাচকভাবে দেখছেন টাইগার অধিনায়ক

স্পোর্টস ডেস্ক : বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে যাওয়ার আশা টিকিয়ে রাখার লড়াইয়ে আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে …

বিশ্বকাপে জো রুটের রেকর্ড

বিশ্বকাপ ডেস্ক : ইংল্যান্ডের হয়ে বিশ্বকাপে দুটি সেঞ্চরির রেকর্ড ছিল কেভিন পিটারসনের। সাবেক এই ইংলিশ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *