রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে সিরিজ জিতল টাইগাররা

স্পোর্টস ডেস্ক: রান খরা কাটিয়ে তামিম ইকবালের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে রেকর্ড ৩২২ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। এরপর অনেকেই ভেবেছিল গত ম্যাচের মতোই বড় জয় পাবে টাইগাররা। কিন্তু ডোনাল্ড তিরিপানো ঝড়ে জয় হাতছাড়া হতে বসেছিল মাশরাফিদের। তবে শেষ ওভারে বাংলাদেশকে জয় এনে দিয়েছেন আল আমিন হোসেন। রুদ্ধশ্বাস উত্তেজনার ম্যাচে ৪ রানে জিতে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে মাশরাফি মুর্তজার দল। শেষ ৮ ওভারে ৯৩ রান তুললেও জয় পাওয়া হয়নি জিম্বাবুয়ের।
শেষ দিকে ম্যাচ জমিয়ে তুলেছিলেন দুই লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যান তিরিপানো এবং মুতোমবোদজি। মাত্র ৩৯ বলেই ৮০ রানের জুটি গড়েন তিরপানো এবং মুতোমবোদজি। আল-আমিন এবং শফিউলকে বেশ কঠিন সময়ই উপহার দিয়েছেন এই দুই ব্যাটসম্যান। শফিউল ৯ ওভারে দেন ৭৬ রান আর আল-আমিন ১০ ওভারে দেন ৮৫ রান। তিরিপানো শেষ পর্যন্ত ২৮ বলে ৫৫ রানে অপরাজিত থাকেন আর মুতোমবোদজি ফেরেন ২১ বলে ৩৪ রানে।

টাইগারদের হয়ে তিনটি উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম আর একটি করে উইকেট নেন মাশরাফি, শফিউল, আল আমিন ও মিরাজ।

পাহাড়সম রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই জিম্বাবুয়ের দুর্গে আঘাত হানেন শফিউল ইসলাম। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে রেগিস চাকাবাকে (২) তুলে নেন শফিউল। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে ব্রেন্ডন টেলর আসেন কামুনহুকামুয়েকে সঙ্গ দিতে। দুইয়ে মিলিয়ে প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে ওঠে রোডেশিয়ানরা। তবে শফিউলের করা দশম ওভারের দ্বিতীয় বলে মিরাজের দুর্দান্ত এক ফিল্ডিংয়ে টেইলরকে (১১) রান আউট করে বিদায় করেন। এরপর অধিনায়ক শন উইলিয়ামসকে সঙ্গে নিয়ে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন তিনাশি। তবে মিরাজের বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হয়ে শন (১৪) ফিরলে ভাঙে ২৩ রানের জুটি। জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক যখন ফিরলেন তখন স্কোরবোর্ডে ৩ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ মাত্র ৬৭ রান। অন্যরা যখন আসা যাওয়ার মিছিলে তখন উইকেটের এক প্রান্ত আকড়ে ধরে রাখেন তিনাশি কামুনহুকামুয়ে। দারুণ এক অর্ধশতকে লড়াই করছিলেন একাই। তবে ২৪তম ওভারে তাইজুলের বলে বোল্ড হয়ে ফেরার আগে তিনাশি করেন ৫১ রান। ৫ম উইকেটে ৮১ রানের দুর্দান্ত জুটি গড়েন সিকান্দার রাজা এবং ওয়েসলি মেধেভেরে। অর্ধশতক তুলে নিয়ে ব্যক্তিগত ৫২ রানে তাইজুলের বলে এলবি হয়ে ফেরেন তিনি। মাধেভের ফেরার পর ভয়ংকর হয়ে ওঠেন সিকান্দার রাজা। দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে পূর্ণ করেন অর্ধশতক। এরপর ৬৬ রানে মাশরাফির শিকার হয়ে ফেরেন দলীয় ২২৫ রানে। তার আগে অবশ্য সিকান্দারকে সঙ্গ দেওয়া মুতুম্বামিকে (১৯) নিজের তৃতীয় শিকারে পরিণত করেন তাইজুল। তাইজুলের পর দ্বিতীয় ওয়ানডেতে প্রথমবার উইকেট পেয়েছেন মাশরাফি। বাংলাদেশ অধিনায়কের শিকার সিকান্দার রাজা। দারুণ ব্যাট করতে থাকা সিকান্দারকে থার্ডম্যানে মাহমুদউল্লাহর ক্যাচ বানান বাংলাদেশ অধিনায়ক। আউট হওয়ার আগে সিকান্দার খেলে যান ৬৬ রানের ঝকঝকে একটি ইনিংস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *