শখের বসে সফল উদ্যোক্তা হলেন মহাদেবপুরের স্বর্ন লতা।

এস এম মোস্তাকিম,নওগাঁ থেকেঃ-

শখের বসে সফল উদ্যোক্তা হলেন নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার স্বর্ন লতা (২২) নামে একজন উদ্যোক্তা। তার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্পটা একটু অন্যরকম। তিনি স্বচ্ছল পরিবারের একজন বউ। অনেকটা শখের বসে শিখেন কেক বানানো। তবে করোনায় ঘরবন্দি সময় কাজে লাগাতে কেক বানিয়ে অনলাইনে বিক্রি শুরু করেন। সাড়াও পান ভালো। এখন ঘরে বসে কেক বিক্রি করে আয় করছেন তিনি।
ব্যাপক সুনামের সহিত নিজ উপজেলা মহাদেবপুর সহ পার্শবর্তী বি়ভিন্ন উপজেলা প্রতিনিয়ত কেক বিক্রি করছেন।

স্বর্ন লতার বাড়ি নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলায়।

বেকিং জগতে আসার জন্য সব থেকে বেশি সাপোর্ট করেছে আমার আম্মু এবং আমার ছোট ননদ Dil Rose Sobnom ( রত্না আপু) এ কথা বলছেন স্বর্ন লতা।

তিনি বলেন, কেক ও সুস্বাদু খাবারের প্রতি ছোটবেলা থেকেই আকর্ষণ ছিল আমার। এর জন্য কোন প্রশিক্ষণ নেইনি। বই পড়ে ও ইউটিউব দেখে পরিবারের জন্য খাবার তৈরি করতাম। করোনাকালীন সময়ে একদিন শখ থেকেই তিনটি কেক তৈরি করে ফেসবুকে ছবি দেই। সাড়া পেয়ে পরিবারের অনুপ্রেরণায় এই পেশায় আসা।

করোনাকালীন মাঝামাঝি সময়ে নিজের জমানো কিছু টাকা দিয়ে কেকের ব্যবসা শুরু করেন স্বর্ন লতা। ফেসবুকে স্বর্ন লতার পেজ এর নাম – Labib & Nabil cake Corner এখানে ভ্যানিলা, চকলেট, লেমন, অরেঞ্জ, ম্যাংগো, রেড ভেলভেট, মিরর গ্লেইজসহ কাস্টমাইজ কেক পাওয়া যায়। এছাড়াও পিৎজা, চিকেন বান ও পুডিং বিক্রি করেন তিনি।।

পেজে অর্ডার আসা কেকগুলোর বেশির ভাগ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি করা। ক্রেতা অনলাইনে যোগাযোগ করলে প্রথমে কেকের নকশা দেখানো হয়। আবার ক্রেতা যেকোন নকশা দিলে সেটি হুবহু কেকে ফুটিয়ে তুলেন তিনি। আর দামও নির্ভর করে আকার ও কাস্টমাইজেশনের ওপর। তবে কেক পেতে হলে দুই থেকে তিন দিন আগে অর্ডার করতে হয়।

রাজধানী ঢাকা ও অনলাইন থেকে কেক তৈরির উপকরণ সংগ্রহ করেন নিপা। গত চার মাসে বিক্রি করেছেন প্রায় দেড় শতাধিক কেক। প্রতিদিন অনলাইনে কেকের অর্ডার পান। কেক তৈরির কাজে তাকে সহায়তা করেন স্বামী, শাশুড়ী মা,দুই ননদ। সংসারের কাজের ফাঁকে অনলাইনে কেকের ছবি দেন স্বামী ও দুই ননদ পরে যেগুলো অর্ডার পান সেগুলো ডেলিভারি ম্যান দিয়ে ক্রেতার কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।

স্বর্না লতা বলেন, শুধু আয়ের জন্য কেক বানাইনা। কেক বানানো আমার কাছে একটা শিল্প। মানুষ কেক খেয়ে খুশি হলে আমি খুশি। ভবিষ্যতে ব্যবসার পরিধি বাড়ানো ও একটি বেকারি খোলার পরিকল্পনা রয়েছে চাকুরী করার ইচ্ছে রয়েছেন।

Check Also

স্কলারশিপ নিয়ে যুক্তরাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ

বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য যুক্তরাজ্যের সম্মানজনক গ্রেট স্কলারশিপের আবেদন শুরু হয়েছে। এই বৃত্তির আওতায় ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে …

একসঙ্গে এসএসসি পাস বাবা-মেয়ে

খাগড়াছড়ি থেকে সংবাদদাতা: বাবা-মেয়ে একসঙ্গে এসএসসি পাস করেছে। খাগড়াছড়ির পানছড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। শাহজাহান ও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *