শিশুকে গলা কেটে হত্যার পর লাশের ওপর দাঁড়িয়ে ছিলেন খুনি!

অনলাইন ডেস্ক: গাজীপুরের কালিয়াকৈরে লিমু আক্তার লামিয়া (১০) নামে এক শিশুকে গলা কেটে হত্যার পর পানিতে ফেলে সেই লাশের ওপর দাঁড়িয়ে ছিলেন খুনি। পরে এ ঘটনায় ওই খুনি ও তার স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) রাতে নিহত শিশুর লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

শিশু লামিয়া কালিয়াকৈর উপজেলার সুত্রাপুর এলাকার সাহেব আলীর মেয়ে। সে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, তিন মাস আগে ওই এলাকায় বগুড়া সদর উপজেলার ফুলবাড়ি উত্তরপাড়া এলাকার মৃত বিল্লাল হোসেনের ছেলে সুমন মিয়া (২৭) ও তার স্ত্রী মিলি বেগম (২০) বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন।

বাসা ভাড়ার বকেয়া ৫ হাজার টাকা নিয়ে নিহত শিশুর পরিবারের সঙ্গে তাদের বাগবিতণ্ডা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সুমন ও তার স্ত্রী মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে শিশু লামিয়াকে গলা কেটে হত্যার পর পাশের খালের পানিতে ফেলে রাখে।

এ দিকে পরিবারের লোকজন লামিয়ার নিখোঁজের বিষয়টি কালিয়াকৈর থানায় জানিয়ে বাড়ির আশপাশে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। এ সময় সুমন পানির নিচে থাকা লামিয়ার লাশের ওপর দাঁড়িয়ে বিভিন্ন দিকে খোঁজার পরামর্শ দেন। পরে সন্দেহ হলে সুমনের কাছে গিয়ে তার পায়ের নিচ থেকে লাশ উদ্ধার করেন স্থানীয়রা। ওই সময় তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেওয়া হয়।

এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। পাশাপাশি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সুমন হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেন।

এদিকে এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হত্যার কারণ জানতে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *